ব্রেকিং নিউজ ::
শিবপুরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন পালন শিবপুরে পুকুর থেকে অজ্ঞাত যুবকের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার শিবপুরে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান সালাউদ্দিন খান অরুনের ৪র্থ মৃত্যুবার্ষিকী পালন শিবপুরে স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য সংগ্রহ ও বর্ধিত সভা শিবপুরে  সামাজিক সম্প্রীতি সমাবেশ অনুষ্ঠিত  অন্তঃসত্ত্বা নারীর লাশ উদ্ধার করেছে শিবপুর মডেল থানা পুলিশ নরসিংদী জেলা আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন সম্পন্ন সভাপতি জিএম তালেব সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী সাংবাদিকতায় উজ্জ্বল আলো ছড়িয়ে যাচ্ছেন শিবপুরের কৃতি সন্তান এস.এম খোরশেদ আলম শিবপুরে আলমারি থেকে শিশুর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার  শিবপুরে সন্ত্রাসী হামলায় বসতঘর ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ
৯৯৯-এ ফোন, ‘তিন খুন করেছি, আরও দুজনকে করে ফেলতে পারি’

৯৯৯-এ ফোন, ‘তিন খুন করেছি, আরও দুজনকে করে ফেলতে পারি’

 

 

‘আমি আমার বাবা-মা এবং বোনকে খুন করছি। আরও দুজন অসুস্থ আছে। তাদেরকেও খুন করতে পারি। আমাকেও খুন করে ফেলতে পারি। আপনারা আসেন। আমাকে ধরেন।’

এভাবেই আজ শনিবার সকালে কদমতলীর মুরাদপুর এলাকার মেহেজাহিনের কাছ থেকে ফোন পায় ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কদমতলী থানার পুলিশ। তারপর বাসার ঠিকানা দিয়ে দ্রুত লাইন কেটে দেন তিনি।

পরে পুলিশ সেই ঠিকানায় গিয়ে সকালে মাসুদ রানা (৫০), তাঁর স্ত্রী মৌসুমী আক্তার (৪৫) এবং তাঁদের মেয়ে জান্নাতুলের (২০) হাত-পা বাঁধা লাশ উদ্ধার করা হয়। এ সময় আটক করা হয়েছে মাসুদ রানার আরেক মেয়ে মেহেজাবিনকে।

রাজধানীর কদমতলীর মুরাদপুর এলাকার বাসা থেকে আজ শনিবার মাসুদ রানা, তাঁর স্ত্রী মৌসুমী আক্তার ও তাঁদের মেয়ে জান্নাতুলের হাত-পা বাঁধা লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। বাড়ির সামনে লোকজনের ভিড়। ছবি : ফোকাস বাংলা
ঘটনাস্থল থেকে মেহেজাবিনের স্বামী শফিকুল ইসলাম ও তাদের পাঁচ বছরের মেয়ে মার্জান তাবাসসুমকে সঙ্কটাপন্ন অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আজ সন্ধ্যায় এনটিভি অনলাইনকে এসব তথ্য জানান ঘটনাস্থলে থাকা কদমতলী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আবুল কালাম আজাদ। তিনি বলেন, জরুরি নম্বর ৯৯৯-এ ফোন করেন মেহেজাবিন।

কেন এই হত্যাকাণ্ড, মেহেজাবিন কী জানিয়েছেন- এমন প্রশ্নে এসআই আবুল কালাম বলেন, ‘প্রথমে তো শুনেছিলাম পারিবারিক দ্বন্দ্ব ছিল। পরে মেহজাবিন জানান, জমিজমা ও টাকা-পয়সার ভাগ-বাটোয়ারা নিয়ে তাদের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে ঝামেলা চলছিল। তবে এটাই শেষ কথা নয়, এখন অনেক ধরনের কথা আসামি বলতে পারেন। আমরা সবকিছু সতর্ক থেকে শুনছি।’

‘মেহেজাবিনকে আটকের পর জিজ্ঞাসাবাদ ও ঘটনার তদন্তে গিয়ে আমরা এখনও পর্যন্ত জেনেছি, তিনজনকে হত্যা করা হয়েছে শ্বাসরোধ করে। এর আগে নেশাজাতীয় কিছু খাইয়েছিলেন মেহেজাবিন। প্রত্যেকের গলায় দাগ রয়েছে। আমাদের ধারণা, গলায় কিছু পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে তিনজনকে হত্যা করা হয়েছে’, যোগ করেন এসআই।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আরও জানিয়েছে, কেন মেহেজাবিন তিন খুনের ঘটনা ঘটিয়েছেন তা অনুসন্ধান করে দেখা হচ্ছে।

সামাজিক যোগাযোগ এ শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© সকল স্বত্ব www.muktasangbad.com অনলাইন ভার্শন কর্তৃক সংরক্ষিত